ট্রেডিং একাউন্ট এর ব্যালেন্স কিভাবে লস করবেন?

0
14

আপনি কি জানেন, নিজের ট্রেডিং একাউন্ট ব্যালেন্সকে কিভাবে লস এর মাধ্যমে শেষ করে ফেলা সম্ভব? ১০ দিন কিংবা আরও কম সময়ে?

আপনাদের সুবিধার জন্য স্টেপ বাই স্টেপ গাইড উপস্থাপন করছি। যদি আপনি এই গাইডের প্রক্রিয়া কিংবা ধাপগুলো মেনে চলেন তাহলে নিশ্চিত ভাবে বলতে পারি দিন দশেক এর মধ্যে ট্রেডিং একাউন্ট এর ব্যালেন্স আর থাকবে না।

ধাপ ১: দামি একটি কম্পিউটার কিনুন

অনেকেরই স্বপ্ন থাকে একটি ট্রেডিং ডেস্ক সেটআপ করার। যেমন, আমরা দেখি বড় বড় ট্রেডিং হাউজগুলোতে অনেকগুলো বড় বড় মনিটর থাকে যেখানে এক সাথে সবকিছু দেখা যায়। যেমন, একটি মনিটরে আপনি চার্ট, একটি মনিটরে BBC, CNBC, অন্য আরও একটি মনিটরে ইন্ডিকেটর এরকম করে ব্যবহার করলেন যাতে মার্কেট এর ক্ষুদ্র থেকে ক্ষুদ্র বিষয়ও আপনার চোখ এড়িয়ে যেতে না পারে। যেমন অনেকটা নিচের ছবির মতন।

অনেকেই আবার আমাদের কাছে জানতেও চেয়েছেন কিভাবে ৪/৫টি মনিটরে এক সাথে ট্রেড দেখা যায়? তবে আমাদের পরামর্শ হচ্ছে, আপনি নরমাল মনিটর না ব্যবহার করে Ultra HD ক্যাটাগরির 4K মনিটর ব্যবহার করতে পারেন কেননা এই মনিটরগুলোর পিক্সেল এর মানও অনেক ভালো। এক একটি মনিটর এর জন্য হয়তোবা আপনার ৫০-৬০ হাজার টাকা খরচ হতে পারে তবে সমস্যা নেই! এটিত বিনিয়োগ করছেন যা পরে ট্রেড করে পুষিয়ে নিতে পারবেন। তাই না ??

আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ জিনিস হচ্ছে মূল্যবান চেয়ার কেননা, এই চেয়ার যদি ভালো না হয় তাহলে সারাদিন বসে তো আর থাকা যাবে না। এই জন্য Steelcase সিরিজ এর একটি চেয়ার কিনে নেয়া যেতে পারে। তাহলে ট্রেড করতে করতে চেয়ারেই ঘুমালেন, খাওয়া-দাওয়া করলেন। মনও ভালো থাকল।

আরও একটি বিষয় ভুলে গিয়েছিলাম, একটি AC কিন্তু না লাগানো চলবে না। কেননা গরমে কি আর মাথা ঠিক থাকে বলেন? শান্তির প্রয়োজন রয়েছে। তাই একটি ভালো মানে ট্রেডিং সেটআপ এর জন্য ভালো মানের সরঞ্জজাম এর প্রয়োজন হয়।

ধাপ ২: পারফেক্ট ইন্ডিকেটর খুজুন

আপনি যখনই ট্রেড করার জন্য একটি পারফেক্ট ইন্ডিকেটর খুঁজে পাবেন এর অর্থ হবে নিজ বাসায় একটি টাকা তোলার ATM মেশিন এর মতন। বড় বড় লটে ট্রেড করবেন আর টাকা প্রফিট হতে থাকবে। ব্যাস আর কি লাগে বলুন??

কয়েকদিন পরেই হয়তোবা আপনি BMW কিংবা Mercedes এর মতন একটি গাড়ির মালিকও হয়ে গেলেন। ইন্ডিকেটর এর উপর নির্ভর করে বেশী করে ট্রেড করবেন আর আপার আলট্রা এইচডি মনিটরে বড় বড় করে সবুজ রঙের এর প্রফিট এমাউন্ট দেখতে পাবেন। প্রথম মাসে গাড়ি এবং এর কয়েকমাসের মধ্যেই গুলশানে একটি ফ্ল্যাটও বুকিং করে ফেলতে পারেন।

ধাপ ৩: ইন্ডিকেটর যখনই Oversold নির্দেশ করবে তখনই এন্ট্রির জন্য ঝাপিয়ে পরতে হবে।

যখন এবং যেভাবে ইন্ডিকেটর সিগন্যাল প্রদান করবে তখনই এন্টির জন্য ঝাপিয়ে পরতে হবে। ডানে-বাঁয়ে তাকানো যাবে না। এবং কোনও প্রশ্নও করা যাবে না।

সবসময়ই মনে রাখতে হবে, ইন্ডিকেটর সবসসময় সঠিক!

যদিও মার্কেট মুভমেন্ট কিংবা গুরুত্বপূর্ণ নিউজ ভিন্ন সিগন্যালও দেয়, তারপরও সেগুলো নিয়ে চিন্তা কিংবা এনালাইসিস করার কোনও দরকার নেই। ইন্ডিকেটর যদি বলে ডানে যেতে, আপনিও ডানে যাবেন। ইন্ডিকেটর যদি বলে বাঁয়ে, তাহলে আপনাকেও বাঁয়ে যেতে হবে।

ধাপ ৪: কারেন্সি সমুহের দেশগুলোর অর্থনীতি নিয়ে মাথা ঘামানোর প্রয়োজন নেই।

আরে ভাই! আমি ট্রেডে এন্ট্রি নিব, আর প্রফিট করে গাড়ি-বাড়ি করবো। কি অর্থনীতি নিয়ে মাথা ঘামাতে হবে আবার? এত সময় কই! কোন দেশ কি করছে, রাজনৈতিক ঝামেলা হচ্ছে না কি হচ্ছে না। অর্থনীতির চাকা ঘুরছে নাকি বন্ধ হয়ে গেছে? এত কিছু জানার কি আছে? আমি কি অর্থনীতিবিদ নাকি?

আসলেই তাই! আপনার কোনও প্রয়োজনই নেই এতকিছু চিন্তা করার। চার্ট আছে, ট্রেড আছে, ডিপোজিট করেছেন, এবার মনের খুশিতে এন্ট্রি নেন আর প্রফিট এর টাকা ATM মেশিন থেকে তুলতে থাকেন।

মানুশিকতা এমন হতে হবে, ট্রেড করুম আর প্রফিট করুম!

ধাপ ৫: বিভিন্ন ফোরামে ঘুরবেন, যতক্ষণ পর্যন্ত পারফেক্ট ট্রেডিং সিগন্যাল না পান।

আরে ভাই, ইন্টারনেট থাকলে কি আর এত চিন্তা করতে হয়? গুগল করলেই ত হাজার হাজার ওয়েবসাইট আছে, ফোরাম আছে যারা নিয়মিত ট্রেডিং সিগন্যাল দেয়। তাদের কাছে গেলেই ত সঠিক সিগন্যাল পেতে পারি। আমরাও বলি! আপনি ঠিকই চিন্তা করছেন। WhatsApp, Telegram, Facebook Group থেকে শুরু করে বিভিন্ন ফোরাম খুঁজে বের করেন যেখানে ট্রেডাররা ফ্রি কিংবা টাকার বিনিময়ে সিগন্যাল দেয়। তারপর সেই সিগন্যাল গুলোর ব্যবহার করে ট্রেড করবেন আর কয়েকদিন এর মধ্যেই মনে করেন Bill Gates কেও ছাড়িয়ে গেলেন। ভালো না বলেন?

আর বাংলাদেশও বিশ্বের সেরা ধনী ব্যাক্তির সন্ধান পেল। এটা অবশ্যই বাংলাদেশ এর জন্য অনেক বেশী গর্বের।

আপনি যদি খুব বেশী ভাগ্যবান হন, তাহলে দেখতে পাবেন, অনেকেই সোশ্যাল মিডিয়া বিশেষ করে ফেইসবুক এবং ইমেইলে আপনাকে বিভিন্ন ধরনের রোবট ব্যবহার করার মাধ্যমে লাখ লাখ টাকার বিজ্ঞাপন দিচ্ছে। এগুলোও আপনার জন্য কাজ করবে বলে আশা রাখি। এছাড়াও অনেক অনেক বড় বড় ট্রেডার রয়েছে যারা ফ্রি সিগন্যাল এর মাধ্যমে প্রতি সপ্তাহে ১০০% নিশ্চিত প্রফিট এর নিশ্চায়তা প্রদান করে। তাদের সাথেও যোগাযোগ করে নিতে পারেন।

এদের কাছে গেলে আপনাকে আর লস দেখতে হবেনা। এই এক্সপার্ট ট্রেডারগন, কম টাকা বিনিয়োগ করেই মনে করেন মিলিয়ন ডলার প্রফিট করে দিতে পারবেন আপনাকে। সুতরাং, এই মহৎ উদ্দেশ্য নিয়ে ট্রেডারগন সবসময়ই আপনাদের জন্য অপেক্ষা করছে। এরাই হচ্ছে মুলত আপনার ট্রেডিং এর জন্য ATM মেশিন। ঘশা দিবেন আর টাকা বের হতে থাকবে।

ধাপ ৬: শ’খানেক ট্রেডারকে ফলো করুন এবং কোনও প্রশ্ন করা যাবে না।

অন্যান্য ট্রেডারকে অনুসরন করতে থাকুন। এর জন্য অবশ্যই তেমন কোনও বিশেষ বুদ্ধিমত্তার প্রয়োজন হবে না। শুধুমাত্র তাদের ট্রেড কপি করার জন্য কয়েকটি ক্লিকই প্রয়োজন হবে।

এই ট্রেডারদের প্রোফাইল ঘাটিলে দেখতে পাবেন, এরা অনেক বছর ধরে ট্রেড করছেন যা নিশ্চিত ভাবে বোঝায়, এরা জ্ঞান এর দিকে থেকে স্যার EinsteinAristotle কিংবা Isaac Newton এর মত বুদ্ধিমান।

সুতরাং এই সকল মহৎ, জ্ঞানী এবং বিজ্ঞ ট্রেডারদের কোনও প্রশ্ন করা যাবে না। শুধুমাত্র এদের ট্রেড কপি করতে থাকেন। একটি বিষয় সবসময় মনে রাখবেন, যত দ্রুত তাদের ট্রেড কপি করতে পারবেন তত তাড়াতাড়ি প্রফিট করতে পারবেন। সুতরাং, এখনই ঝাপিয়ে পড়া দরকার।

ধাপ ৭: কোনও ট্রেডিং প্ল্যান এর দরকার নেই। শুধু ট্রেডে মনোযোগী হউন।

ধুর ভাই! কি বলেন এগুলো? ট্রেডিং প্ল্যান এর কি দরকার আছে? ট্রেড করবো, এন্ট্রি নিব আর প্রফিট করতে থাকবো। এছাড়া আর কিছুর দরকার নেই। কোথাও শুনিও নেই এই “ট্রেডিং প্ল্যান” শব্দ সম্পর্কে।

সকালে ঘুম থেকে উঠে, নাস্তা খেয়ে কিংবা না খেয়ে দামি কম্পিউটারটি চালুন করুন, দামি চেয়ারে বসে AC এর ঠাণ্ডা বাতাস খেতে খেতে চার্ট থেকে ইন্ডিকেটর কি সিগন্যাল দেয় সেটি দেখুন তারপর এন্ট্রি নেন এবং প্রফিট করতে থাকেন। একদম সিম্পল, কোনও ঝামেলাই নেই।

ট্রেডে কিভাবে এন্ট্রি নিবেন, লস হলে কি করতে হবে, এতকিছু চিন্তার কিছুই নেই। বিজ্ঞট্রেডারগন এর ট্রেডে কপি করতে থাকেন, ব্যাস প্রফিট আপনার হবেই।

ধাপ ৮: শুধু চিন্তা করেন কি পরিমাণ প্রফিট করা যায়? লসের চিন্তা করতে হবে না!

ভাই! ট্রেড হচ্ছে, প্রফিট করার জন্য। লসের জন্যকি কেউ ট্রেড করে বলেন? কি পরিমাণ বিনিয়োগ করে কি পরিমাণ প্রফিট হবে সেটি চিন্তা করতে থাকুন।

এন্টির পরিমাণ সবসময় বড় নিতে হবে। যেমন ধরুন, ১০০ ডলার ডিপোজিট করে মনে করুন ১০ লট কিংবা এর থেকেও বেশী পরিমাণ। এন্ট্রি নিবেন আর প্রফিট করবেন। আর কিছু লাগবে না।

সুতরাং, শুধুমাত্র ট্রেডিং এর জন্য মনোযোগী হউন। লস হবে কেন? আপনি তো আর খারাপ ট্রেড করেন না, তাই না? আপনার এন্ট্রি হবে প্রফিট এর জন্য এবং সবসময়ই প্রফিটই হবে এটি নিশ্চিত ভাবে বলতে পারি।

ধাপ ৯: স্টপ-লস সেট করার কোনও দরকার নেই। এটি খারাপ ট্রেডাররা ব্যবহার করে। 

আপনি একজন উইনার। অর্থাৎ আপনি যেই ট্রেড করবেন সেটিতেই প্রফিট করতে পারবেন। তাই লস এর চিন্তা আপনাকে কখনোই করতে হবে না। আর একটি বিষয় মনে রাখবেন,

Stop Loss is for Losers!

যাদের হার্ট দুর্বল, অল্পতেই চিন্তায় পরে যায়, তাদের জন্য হচ্ছে স্টপলস অর্ডার। এটি আপনার জন্য নয়। সুতরাং, আপনার এগুলো ব্যবহার করার কোনও দরকার কিংবা প্রয়োজন নেই।

যদি আপনার এন্টিতে লসও থাকে তারপরও ধরে নিবেন, কিছু সময় পর এটি পুনরায় আপনার পক্ষে চলে আসবে। সুতরাং, চিন্তার কিছুই নেই। প্রফিট আপনার হবেই। এই শুধু ট্রেড করে যান, প্রফিট গুণতে থাকেন।

ধাপ ১০: আবেগ এর ভিত্তিতে ট্রেড করতে থাকুন।

এন্ট্রি নেয়ার জন্য অর্থাৎ ট্রেড করার জন্য চার্ট, ভালো মানে কম্পিউটার এবং পারফেক্ট ইন্ডিকেটর থাকলেই হল। এর থেকে বেশী কিছু লাগে না এবং প্রয়োজনই হয় না।

যখন আপনার মনে হবে, এই এন্ট্রি থেকে বেশী প্রফিট পাওয়া যাবে তখন BUY এন্ট্রি গ্রহন করবেন। আবার যখন একটু ভয় লাগবে, চিন্তিত হয়ে পড়বেন তখন SELL এন্ট্রি নিয়ে নিবেন।

অর্থাৎ, আপনার মন যা চাইবে তখন সেটাই করবেন। কোনও লজিক, ক্যালকুলেশন কিংবা এনালাইসিস করার প্রয়োজন হবে না। সুতরাং, বেশী বেশী করে ট্রেড করুন এবং প্রফিট করতে থাকুন।

সারমর্ম:

মনে রাখবেন, উপরের ধাপগুলো অবশ্যই আপনাকে মেনে চলতে হবে এবং শেষে খুব শিগ্রই আপনার ট্রেডিং ব্যালেন্সে অনেকগুলো ডিজিট দেখতে পাবেন যার ফলে মনে হতে থাকবে আপনি বড়োলোক হয়ে গেছেন।

যদি আরও দ্রুত ধনী হওয়ার ইচ্ছা পোষণ করেন তাহলে এই ধাপগুলোকে ক্রমাগত অনুসরন করতে থাকুন। তাহলে দেখবেন সফলতা আপনার দরজায় কড়া নারছে।

তবে যদি আপনি নিজ ট্রেডিং একাউন্টকে নস্ত কিংবা জিরো করতে না চান, তাহলে আশা করছি ইতিমধ্যেই বুঝতে পেরেছেন, কি কি করতে হবে আর অন্যদিকে কি করা থেকে বিরত থাকতে হবে।

নতুনঅবস্থায় যারা ট্রেডার হওয়ার স্বপ্ন নয়ে আসেন তারা এই ধাপগুলো অনুসরন করতে থাকেন। এমনকি আমি নিজেও সেটি করেছি

আশা করছি, আপনি এই ভুলগুলো করবেন না।


আশা করি আর্টিকেলটি আপনার ভালো লেগেছে। এই আর্টিকেল সম্পর্কিত বিশেষ কোনও প্রশ্ন থাকলে আমাদের জানতে পারেন কিংবা নিচে কমেন্ট করতে পারেন। প্রতিদিনের আপডেট ইমেইল এর মাধ্যমে গ্রহনের জন্য, নিউজলেটার সাবস্ক্রাইব করে নিতে পারেন। এছারাও যুক্ত হতে পারেন আমাদের ফেইসবুক এবং কমিউনিটি পোর্টালে। সেই সাথে রয়েছে আমাদের ভিডিও ট্রেনিং লাইব্রেরী। এছারাও ট্রেড শিখার জন্য জন্য আমাদের রয়েছে অনলাইন ট্রেনিং পোর্টাল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here