এনআরবি ব্যাংকের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে বিএসইসি

0
75

অনৈতিকভাবে শেয়ার ব্যবসার সঙ্গে জড়িত থাকার দায়ে এনআরবি ব্যাংকের বিনিয়োগ ব্যাংকিং ইউনিটের সব সদস্যসহ প্রধান অর্থ কর্মকর্তার (সিএফও) বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। একই সঙ্গে গোপনীয় নথিপত্র সংরক্ষণে ব্যর্থতার জন্য এনআরবি ব্যাংকের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে কমিশন।

সম্প্রতি এনআরবি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের কাছে পাঠানো চিঠিতে এসব নির্দেশনা দিয়েছে বিএিইসি।

শেয়ার বাজারে বিনিয়োগে অসঙ্গতি এবং অন্যান্য অনিয়ম খতিয়ে দেখতে গঠিত তদন্ত কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে বিএসইসির পক্ষ থেকে এনআরবি ব্যাংককে এমন নির্দেশনাসহ বেশকিছু পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে ওই পরামর্শ অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়ে বিএসইসিকে অবহিত করার জন্য এনআরবি ব্যাংককে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এদিকে, এনআরবি ব্যাংকের বিরুদ্ধে গঠিত বিএসইসি’র তদন্ত কমিটির পর্যবেক্ষণ ও সুপারিশে উল্লেখ করা হয়েছে—এনআরবি ব্যাংকের প্রধান অর্থ কর্মকর্তা (সিএফও) কামরুল হাসান বহিরাগতদের সহযোগিতায় অনৈতিক ব্যবসায়িক কার্যকলাপে জড়িত থাকার জন্য দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন। তার অনৈতিক কার্যক্রমের ফলে এনআরবি ব্যাংক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং বহিরাগতসহ তিনি লাভবান হয়েছেন। ফলে, তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ সাপেক্ষে ব্যাংকটি কমিশনকে অবহিত করতে পারে।

এনআরবি ব্যাংকের বিনিয়োগ ব্যাংকিং ইউনিটের সব সদস্য এবং অন্য কর্মকর্তারাও অনৈতিক শেয়ার ব্যবসায়িক কার্যকলাপের জন্য দায়ী। কারণ, তারা এ ক্ষেত্রে যথাযথ ভূমিকা পালন করতে ব্যর্থ হয়েছে। ফলে, ব্যাংক কর্তৃপক্ষ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থাও নেবে।

এছাড়া, এনআরবি ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ, ব্যবস্থাপনা এবং বিনিয়োগ কমিটি পর্ষদ তাদের অভ্যন্তরীণ অডিট রিপোর্ট ও পরিচালনা পর্ষদের সভার কার্যবিবরণী সংরক্ষণের গোপনীয়তা নিশ্চিত করতে ব্যর্থ হয়েছে। নথিগুলো কিভাবে বহিরাগতদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে, তা খুঁজে বের করতে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ একটি অভ্যন্তরীণ তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। তদন্ত কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী, এ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়ারও সুপারিশ করা হচ্ছে। গুরুত্বপূর্ণ নথি সংরক্ষণের গোপনীয়তা নিশ্চিত করতে এনআরবি ব্যাংক কর্তৃপক্ষকে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে হবে।

এদিকে, বিএসইসির তদন্ত কমিটি এনআরবি ব্যাংকের অভ্যন্তরীণ অডিট কমিটির প্রশংসা করে জানিয়েছে, যেহেতু অভ্যন্তরীণ অডিট কমিটি বিষয়টি সঠিকভাবে অডিট করেছে এবং প্রকৃত পরিস্থিতি খুঁজে বের করে ব্যাংকটিকে বিশাল আর্থিক ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করেছে। সেজন্য এনআরবি ব্যাংকের অভ্যন্তরীণ অডিট কমিটি প্রশংসার দাবিদার।

এ পরিস্থিতিতে তদন্ত কমিটির সুপারিশ ও পরামর্শ অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়ে আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে এ বিষয়টি কমিশনকে অবহিত করতে এনআরবি ব্যাংককে নির্দেশ দেওয়া হলো।

এর আগে গত বছরের ১ নভেম্বর শেয়ার বাজারে বিনিয়োগে অসঙ্গতি এবং বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ খতিয়ে দেখতে এনআরবি ব্যাংকের বিরুদ্ধে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করার নির্দেশ দেয় বিএসইসি। এ আদেশ জারি করার ৩০ কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত কমিটিকে এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন বিএসইসিতে দাখিল করতে নির্দেশ দেওয়া হয়।

তদন্ত কমিটির সদস্যরা হলেন—বিএসইসির অতিরিক্ত পরিচালক মোহাম্মদ গোলাম কিবরিয়া, উপ-পরিচালক সিরাজুল ইসলাম ও ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের মনিটরিং অ্যান্ড কমপ্লায়েন্স বিভাগের উপ-ব্যবস্থাপক গিয়াস উদ্দিন।

গত ১৬ সেপ্টেম্বর কেন্দ্রীয় ব্যাংক বিনিয়োগের সীমার বাইরে গিয়ে শেয়ার কিনে আইন লঙ্ঘন করার জন্য এনআরবি ব্যাংককে ৪৯ লাখ ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করে বাংলাদেশ ব্যাংক। এনআরবি ব্যাংকের বিরুদ্ধে ওঠা বিভিন্ন অভিযোগের সত্যতা খতিয়ে দেখবে বিএসইসির গঠিত তদন্ত কমিটি।

ট্রেডার বাংলাদেশ, ০৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২২

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here