কোন ব্যাংকে টাকা রাখবেন?

0
35
HTML tutorial

কোন ব্যাংকে টাকা রাখবেন, এ নিয়ে সাম্প্রতিক সময়ে দুশ্চিন্তা মানুষের মনে। এ নিয়ে বেশ আলোচনাও চলছে। উদ্বিগ্ন গ্রাহকদের অনেকে এক ব্যাংক থেকে টাকা তুলে অন্য ব্যাংকে জমা করছেন। আবার ব্যাংক থেকে টাকা তুলে নিজের কাছেও রাখছেন কেউ কেউ। ফলে ব্যাংকের বাইরে নগদ টাকার পরিমাণ দিন দিন বাড়ছে। কে চাইবে নিজের কষ্টের জমানো টাকা বেহাত হোক? তাই হয়তো গ্রাহকদের এমন আচরণ।

ব্যাংকে টাকা রেখে টাকা ফেরত না পাওয়ার ঘটনা রয়েছে এ দেশে। আইসিবি ইসলামিক ব্যাংকে (সাবেক ওরিয়েন্টাল ব্যাংক) টাকা রেখে এখনো অনেক গ্রাহক টাকা ফেরত পাননি। কয়েক বছর আগেও পদ্মা ব্যাংকে (সাবেক ফারমার্স) টাকা রেখে সেই টাকা ফেরত পেতে ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে গ্রাহকদের। দেশের প্রায় এক ডজন আর্থিক প্রতিষ্ঠানে জমানো টাকা ফেরত না পাওয়ার ঘটনাও কারও অজানা নয়।

একসময় ব্যাংকের বিভিন্ন সূচক তথা ক্রেডিট রেটিং, ক্যামেলস রেটিং, মূলধন পরিস্থিতি, খেলাপি ঋণের হারসহ নানা বিষয় বিবেচনা করা হতো। তবে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে টাকার নিরাপত্তায় এসব সূচক গুরুত্ব হারিয়েছে। কারণ, দেশে রেটিং প্রতিষ্ঠানগুলোর স্বচ্ছতা নিয়ে নানা প্রশ্ন রয়েছে। ফলে খারাপ ও দুর্বল ব্যাংকগুলোও ভালো রেটিং পাচ্ছে। আবার নানা সুযোগ-সুবিধার কারণে আদায় না হলেও অনেক ঋণকে খেলাপি হিসেবে দেখাচ্ছে না কিছু ব্যাংক। ফলে কোন ব্যাংক ভালো, আর কোন ব্যাংক খারাপ, তা সহজে বলা খুব কঠিন। এদিকে দুর্বল ১৪টি ব্যাংকে পর্যবেক্ষক ও সমন্বয়ক নিয়োগ দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এই ১৪ ব্যাংকের বাইরে সব ব্যাংক যে ভালো, তা-ও বলা যাবে না।

কোন ব্যাংকে টাকা রাখবেন, তা বাছাইয়ে কয়েকটি পরামর্শ দিয়েছেন কয়েক ব্যাংকার। তাঁরা বলছেন, গ্রাহকেরা টাকা জমানোর সময় সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের দিকে খেয়াল রাখতে পারেন। যেই ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের ভাবমূর্তি যত বেশি স্বচ্ছ, সেই ব্যাংক ততটাই নিরাপদ। প্রতিটি ব্যাংকের ওয়েবসাইটে পরিচালকদের নাম ও পরিচয় দেওয়া থাকে। পাশাপাশি কোন ব্যাংকের বড় গ্রাহক কারা, অর্থাৎ আমানতের টাকা ব্যাংক কাকে দিচ্ছে, তারও খোঁজ নিতে হবে।

ব্যাংকগুলো প্রতিবছর যে বার্ষিক প্রতিবেদন তৈরি করে, সেই প্রতিবেদনে কয়েকজন শীর্ষ গ্রাহকের নাম ও ঋণের পরিমাণ উল্লেখ থাকে। পাশাপাশি যেই ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগ যতটা স্বচ্ছ, সেই ব্যাংকও ততটা ভালো। কারণ, দিন শেষে ব্যাংকের কর্মকর্তারাই পারে ব্যাংকটিকে ভালো রাখতে। আবার ব্যাংকটির শীর্ষ কর্মকর্তাদের পেশাদারত্ব গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এসব বিষয় বিবেচনায় নিলে জমানো টাকা নিরাপদ থাকতে পারে।

আর গ্রাহকদের মনে রাখা প্রয়োজন, যেই ব্যাংক আমানতে যত বেশি সুদ দেয়, সেই ব্যাংক ততটা দুর্বল। সেই ব্যাংক বেশি তারল্যসংকটে ভুগছে। এ কারণেই বেশি সুদ দিয়ে গ্রাহক থেকে টাকা আনার চেষ্টা করছে। এসব ব্যাংক বেশি সুদ দেবে ঠিকই, তবে একটা সময় পর আসল ফেরত পাওয়া নিয়ে ভোগান্তিতে পড়তে হতে পারে।

এদিকে ব্যাংক খাত থেকে ৫০ হাজার কোটি টাকা তুলে নেওয়া নিয়ে যে গুজব রটেছে, তার কোনো ভিত্তি নেই। মূলত এক বছরে ব্যাংকের হাতে থাকা অতিরিক্ত তারল্য প্রায় ৫০ হাজার কোটি টাকা কমে গেছে। ডলার কেনা ও ঋণ দিতে গিয়ে ব্যাংকের হাতে থাকা টাকা কমে গেছে।

টাকা যেহেতু আপনার, তাই কষ্ট করে এসব খোঁজখবর নিজে নেওয়া ভালো। কারণ, কষ্টের টাকা আটকে গেলে বিপদ। আর টাকা সময়মতো না পেলে তার সঠিক মূল্য থাকে না।

ট্রেডার বাংলাদেশ, ২৭ ডিসেম্বর, ২০২২

HTML tutorial

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here