চলতি বছরে ঋণ পুনঃ তফসিল হয়েছে ৪,২৬২ কোটি টাকা

0
69

করোনার কারণে অনেক ব্যবসায়ী ক্ষতিতে পড়েছেন। আবার করোনার আগেও অনেক ঋণখেলাপি হয়েছেন। অনিয়ম করে নেওয়া ঋণ যেমন খারাপ হয়েছে, তেমনি ঋণ অন্য খাতে ব্যবহারের কারণেও খেলাপি হয়ে গেছে। এসব কারণে চলতি বছরে ঋণ পুনঃ তফসিলের পরিমাণ বেড়েছে।

জানা গেছে, বাংলাদেশ ব্যাংক চলতি বছরে ৪ হাজার ২৬২ কোটি টাকার ঋণ পুনঃ তফসিলের অনুমোদন দিয়েছে। এর মধ্যে জানুয়ারি-মার্চ প্রান্তিকে পুনঃ তফসিল হয়েছে ১ হাজার ৩৪৭ কোটি টাকা। এপ্রিল-জুন সময়ে ২ হাজার ৯১৫ কোটি টাকা পুনঃ তফসিল হয়েছে। এর বাইরে ব্যাংকগুলো নিজস্ব উদ্যোগে ঋণ নিয়মিত করেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা বলছেন, ব্যাংকগুলো নিজস্ব উদ্যোগে ঋণ পুনঃ তফসিল করতে পারে। তবে এ ক্ষেত্রে এককালীন জমার পরিমাণ ঠিক রাখাসহ বেশ কিছু শর্ত মানতে হয়। এসব শর্ত অনেক গ্রাহক মানতে পারেন না। এ জন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বিশেষ অনুমোদন নিয়ে ঋণ পুনঃ তফসিল করা হয়। এতে অনেক সময় এককালীন জমার পরিমাণ কমে যায়, আবার ঋণের মেয়াদ অস্বাভাবিকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ার ঘটনাও ঘটে। মূলত যাঁর তদবির যত শক্তিশালী, তিনি ঋণ পুনঃ তফসিলে তত বেশি সুবিধা পেয়ে থাকেন।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রতিবেদনে দেখা গেছে, এপ্রিল-জুন সময়ে রাষ্ট্রমালিকানাধীন ব্যাংকগুলো ৪৫৭ কোটি টাকা, বেসরকারি ব্যাংকগুলো ১ হাজার ৫৯৭ কোটি টাকা, বিদেশি ব্যাংকগুলো ২৪ কোটি টাকা ও বিশেষায়িত ব্যাংকগুলো ৮৩৬ কোটি টাকা ঋণ পুনঃ তফসিল করেছে।

করোনাভাইরাসের কারণে ২০২০ সালের পুরো সময় ঋণ পরিশোধে বিশেষ সুবিধা পান ব্যবসায়ীরা। নীতি–সুবিধার কারণে ওই সময়ে ঋণের কিস্তি পরিশোধ না করেও কেউ খেলাপি হননি। এখন এ বিশেষ সুবিধা বহাল না রাখলেও ঋণ পরিশোধে কিছুটা ছাড় দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এরপরও ব্যাংক খাতে খেলাপি ঋণ বাড়ছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, গত মার্চে ব্যাংক খাতে মোট খেলাপি ঋণ ছিল ৯৪ হাজার ২৬৫ কোটি টাকা। গত জুনে তা বেড়ে হয়েছে ৯৮ হাজার ১৬৪ কোটি টাকা। অর্থাৎ তিন মাসে খেলাপি ঋণ বেড়েছে ৩ হাজার ৮৯৯ কোটি টাকা। আর গত বছরের জুনে খেলাপি ঋণ ছিল ৯৬ হাজার ১১৬ কোটি টাকা। ফলে এক বছরে খেলাপি ঋণ বেড়েছে ২ হাজার ৪৮ কোটি টাকা।

ব্যাংকাররা বলছেন, দেশে নথিপত্রে খেলাপি ঋণ যতই দেখানো হোক না কেন, প্রকৃত চিত্র তার চেয়ে প্রায় তিন গুণ বেশি। অনেক গ্রুপের ঋণ আদায় না হলেও বছরের পর বছর খেলাপি করা হয় না। আবার একই ঋণ বারবার পুনঃ তফসিল করে ঋণ নিয়মিত রাখা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here