যুক্তরাষ্ট্রে বিএসইসির রোডশোতে ‘নগদে’ ২৫৫ কোটি টাকা বিনিয়োগের ঘোষণা

0
63
post 699

মুঠোফোনে আর্থিক সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান (এমএফএস) নগদে তিন কোটি মার্কিন ডলার বিনিয়োগ করবে যুক্তরাষ্ট্রের কিউ গ্লোবাল নামের একটি কোম্পানি। বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ (প্রতি ডলার ৮৫ টাকা) প্রায় ২৫৫ কোটি টাকা। নগদের ইস্যু করা বন্ডে এ বিনিয়োগ করবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কোম্পানিটি। বাংলাদেশ সময় সোমবার রাতে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের একটি হোটেলে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে এ ঘোষণা দেওয়া হয়। একই সঙ্গে অনুষ্ঠানে ৫০০ কোটি টাকার বন্ড ছাড়ার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিয়েছে নগদ।

বাংলাদেশে বিদেশি বিনিয়োগ উৎসাহিত করতে যুক্তরাষ্ট্রের চারটি শহরে রোডশো করছে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। বাংলাদেশ সময় সোমবার রাতে নিউইয়র্কের একটি হোটেলে এ রোডশোর উদ্বোধন করা হয়। এ রোডশো উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে নগদে বিনিয়োগের এ ঘোষণা দেওয়া হয়।

মঙ্গলবার নগদের পক্ষ থেকে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, প্রথম এমএফএস কোম্পানি হিসেবে ৫০০ কোটি টাকার বন্ড ইস্যু করতে যাচ্ছে নগদ। পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি এরই মধ্যে বন্ডটির প্রাথমিক অনুমোদনও দিয়েছে। জানা গেছে, যুক্তরাষ্ট্রের কোম্পানিদের পক্ষ থেকে নগদে বিনিয়োগের বিষয়টি আগেই চূড়ান্ত হয়েছিল। রোডশোর উদ্বোধনী দিনে আনুষ্ঠানিকভাবে তা ঘোষণা করা হয়।

এদিকে বিএসইসি আয়োজিত রোডশো আয়োজনে সহায়তা করছে নগদ। এ ছাড়া এ আয়োজনে সহায়তাকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে রয়েছে ইস্টার্ন ব্যাংক ও ওয়ালটন। তিনটি প্রতিষ্ঠানই বিএসইসির সঙ্গে সরাসরি স্বার্থসংশ্লিষ্ট। এর মধ্যে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানি ইস্টার্ন ব্যাংক ও ওয়ালটন। আর সম্প্রতি ৫০০ কোটি টাকার বন্ড ছাড়তে বিএসইসির প্রাথমিক অনুমোদন নিয়েছে নগদ।


নগদের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, বন্ডের মাধ্যমে সংগ্রহ করা অর্থ প্রতিষ্ঠানটির ডিজিটাল অবকাঠামো ও নেটওয়ার্ক তৈরি, তথ্যপ্রযুক্তি সরঞ্জাম ক্রয়, বিপণন ও প্রচারের কাজে ব্যবহার করা হবে। বন্ডটির মূল আয়োজক হিসেবে কাজ করছে রিভারস্টোন ক্যাপিটাল। আর ট্রাস্টির দায়িত্বে রয়েছে গ্রিন ডেল্টা ক্যাপিটাল লিমিটেড।

বিএসইসির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, বিদেশি ও প্রবাসী বাংলাদেশিদের এ দেশে বিনিয়োগে উৎসাহিত করতে এ রোডশোর আয়োজন করা হয়েছে। এ দেশে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে যেসব সুযোগ-সুবিধা রয়েছে, তা প্রবাসী বাংলাদেশি ও বিদেশি বিনিয়োগকারীদের সামনে তুলে ধরাই এ রোডশো আয়োজনের মূল উদ্দেশ্য। গত সোমবার রোডশোর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগবিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান, বিএসইসির চেয়ারম্যান শিবলী রুবাইয়াত উল ইসলাম, বিশ্বব্যাংকের সাবেক প্রধান অর্থনীতিবিদ লরেন্স এইচ সামারস।

বিএসইসি জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের চার শহরে চার দিন এ রোডশো অনুষ্ঠিত হবে। তার মধ্যে গতকাল নিউইয়র্কে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান হয়েছে। আজ বুধবার বাংলাদেশ সময় রাতে ওয়াশিংটনে অনুষ্ঠিত হবে রোডশোর দ্বিতীয় আয়োজন। এরপর ৩০ জুলাই লস অ্যাঞ্জেলেসে ও ২ আগস্ট সিলিকন ভ্যালিতে রোডশো অনুষ্ঠিত হবে।

বিএসইসির নেতৃত্বে বাংলাদেশের বড় একটি প্রতিনিধিদল এ রোডশোতে অংশ নিচ্ছে। তার মধ্যে অর্থ মন্ত্রণালয়, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিডা), রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল কর্তৃপক্ষ বেপজা, দেশের দুই স্টক এক্সচেঞ্জ, বেসরকারি ব্যাংক, বিভিন্ন ব্রোকারেজ হাউস, মার্চেন্ট ব্যাংকসহ শেয়ারবাজার–সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শীর্ষ কর্মকর্তারা এ প্রতিনিধিদলে রয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here