সপ্তাহজুড়ে ১৫ কোম্পানির লভ্যাংশ ঘোষণা

0
75

সপ্তাহজুড়ে পুঁজিবাজারের তালিকাভুক্ত কোম্পানি ওয়ালটন হাইটেক ইন্ডাষ্ট্রিজ লিমিটেড এবং ১৪টি মিউচ্যুয়াল ফান্ড ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। ডিএসই সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে।

ওয়ালটন হাইটেক: ৩০ জুন, ২০২১ অর্থবছরের জন্য ২৫০ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। আগের বছর কোম্পানিটি ২০০ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড দিয়েছিল। সমাপ্ত অর্থবছরের মুনাফা থেকে কোম্পানিটির উদ্যোক্তারা নেবেন ১৭০ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড। অর্থাৎ তারা সাধারণ শেয়ারহোল্ডারদের চেয়ে ৮০ শতাংশ কম ডিভিডেন্ড নেবেন।

সমাপ্ত অর্থবছরে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৫৪ টাকা ২১ পয়সা। আগের বছর ইপিএস ছিল ২৪ টাকা ২১ পয়সা। ৩০ জুন, ২০২১ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ৩৩১ টাকা ৫৯ পয়সা। আগামী ২৯ সেপ্টেম্বর ডিজিটাল প্ল্যাটফরমের মাধ্যমে কোম্পানিটির বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) অনুষ্ঠিত হবে। এর জন্য রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে ৫ সেপ্টেম্বর।

এনএলআইফাস্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড: ফান্ডটি ইউনিট হোল্ডারদের জন্য সাড়ে ১৭ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। আগের বছর ফান্ডটি ৫ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড দিয়েছিল। আলোচ্য সময়ে ফান্ডটির ইউনিট প্রতি আয় হয়েছে ৩ টাকা ১৪ পয়সা। সম্পদ মূল্য হয়েছে ১৩ টাকা ৮৫ পয়সা। ডিভিডেন্ড প্রাপ্তির যোগ্যতা নির্ধারণে ফান্ডটির রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে ২ সেপ্টেম্বর।

এসইএমএল আইবিবিএল শরীয়াহ ফান্ড: ফান্ডটি ইউনিট হোল্ডারদের জন্য ১০ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। আগের বছর ফান্ডটি কোন ডিভিডেন্ড দেয়নি। আলোচ্য সময়ে ফান্ডটির ইউনিট প্রতি আয় হয়েছে ২ টাকা ৩৫ পয়সা। সম্পদ মূল্য হয়েছে ১১ টাকা ৩১ পয়সা। ডিভিডেন্ড প্রাপ্তির যোগ্যতা নির্ধারণে ফান্ডটির রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে ২ সেপ্টেম্বর।

এসইএমএল এফবিএসএল গ্রোথ ফান্ড: ফান্ডটির ট্রাস্টি আলোচ্য বছরে ইউনিট হোল্ডারদের জন্য ১৫ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। আগের বছর ফান্ডটি ২.৫০ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড দিয়েছিল।

আলোচ্য সময়ে ফান্ডটির ইউনিট প্রতি আয় হয়েছে ১ টাকা ৮৭ পয়সা। সমাপ্ত অর্থবছরে বাজার মূল্য অনুযায়ী ফান্ডটির ইউনিট প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ১২ টাকা ৪০ পয়সা। ফান্ডটির ডিভিডেন্ড সংক্রান্ত রেকর্ড ডেট আগামী ২ সেপ্টেম্বর নির্ধারণ করা হয়েছে।
এসইএমএল লেকচার ইক্যুয়িটি ম্যানেজমেন্ট ফান্ড: ফান্ডটির ট্রাস্টি আলোচ্য বছরে ইউনিট হোল্ডারদের জন্য ১৫ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। আগের বছর ফান্ডটি কোন ডিভিডেন্ড দেয়নি। আলোচ্য সময়ে ফান্ডটির ইউনিট প্রতি আয় হয়েছে ২ টাকা ৮৪ পয়সা।

সমাপ্ত অর্থবছরে বাজার মূল্য অনুযায়ী ফান্ডটির ইউনিট প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ১১ টাকা ৮৪ পয়সা। ফান্ডটির ডিভিডেন্ড সংক্রান্ত রেকর্ড ডেট আগামী ২ সেপ্টেম্বর নির্ধারণ করা হয়েছে।

আইসিবি থার্ড এনআরবি মিউচ্যুয়াল : ফান্ডটি ইউনিট হোল্ডারদের জন্য ৭ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। আগের বছর ফান্ডটি ৫ শতাংশ ডিভিডেন্ড দিয়েছিলো। আলোচ্য সময়ে ফান্ডটির ইউনিট প্রতি আয় হয়েছে ৫২ পয়সা। আগের বছর হয়েছিলো ২৪ পয়সা। ডিভিডেন্ড প্রাপ্তির যোগ্যতা নির্ধারণে ফান্ডটির রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে ৬ সেপ্টেম্বর।

আইএফআইএল ইসলামিক: ফান্ডটি ইউনিট হোল্ডারদের জন্য ৪ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। আগের বছর ফান্ডটি ৪ শতাংশ ডিভিডেন্ড দিয়েছিলো।

আলোচ্য সময়ে ফান্ডটির ইউনিট প্রতি আয় হয়েছে ৩১ পয়সা। আগের বছর হয়েছিলো ২২ পয়সা। ডিভিডেন্ড প্রাপ্তির যোগ্যতা নির্ধারণে রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে ৬ সেপ্টেম্বর।

আইসিবি এএমসিএল সেকেন্ড: ফান্ডটি ইউনিট হোল্ডারদের জন্য ৮ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। আগের বছর ফান্ডটি ইউনিট হোল্ডারদের ৫ শতাংশ ডিভিডেন্ড দিয়েছিলো। আলোচ্য সময়ে ফান্ডটির ইউনিট প্রতি আয় হয়েছে ৩৭ পয়সা।আগের বছরে ছিলো ৩০ পয়সা। ডিভিডেন্ড প্রাপ্তির যোগ্যতা নির্ধারণে ফান্ডটির রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে ৬ সেপ্টেম্বর।

আইসিবি এমপ্লয়ীজ প্রভিডেন্ট: ফান্ডটি ইউনিট হোল্ডারদের জন্য ৬ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। আগের বছর ফান্ডটি ৫ শতাংশ ডিভিডেন্ড দিয়েছিলো। আলোচ্য সময়ে ফান্ডটির ইউনিট প্রতি আয় হয়েছে ৪১ পয়সা। আগের বছরে ছিলো ২০ পয়সা। ডিভিডেন্ড প্রাপ্তির যোগ্যতা নির্ধারণে ফান্ডটির রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে ৬ সেপ্টেম্বর।

প্রাইম ব্যাংক ফাস্ট আইসিবি: ফান্ডটি ইউনিট হোল্ডারদের জন্য ৭.৫০ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। আগের বছর ফান্ডটি ৫ শতাংশ ডিভিডেন্ড দিয়েছিলো। আলোচ্য সময়ে ফান্ডটির ইউনিট প্রতি আয় হয়েছে ৪৭ পয়সা। আগের বছরে ছিলো ৩১ পয়সা। ডিভিডেন্ড প্রাপ্তির যোগ্যতা নির্ধারণে ফান্ডটির রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে ৬ সেপ্টেম্বর।

আইসিবি এএমসিএল সোনালী: ফান্ডটি ইউনিটহোল্ডারদের জন্য ৭ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। আগের বছর ফান্ডটি ৫ শতাংশ ডিভিডেন্ড দিয়েছিলো। আলোচ্য সময়ে ফান্ডটির ইউনিট প্রতি আয় হয়েছে ৫৩ পয়সা। আগের বছরে ছিলো ৪১ পয়সা। ডিভিডেন্ড প্রাপ্তির যোগ্যতা নির্ধারণে ফান্ডটির রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে ৬ সেপ্টেম্বর।

ফিনিক্স ফাইন্যান্স মিউচ্যুয়াল ফান্ডের: ফান্ডটি ইউনিট হোল্ডারদের জন্য ৬ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। আগের বছর ফান্ডটি ইউনিট হোল্ডারদের জন্য ৫ শতাংশ ডিভিডেন্ড দিয়েছিলো।
আলোচ্য সময়ে ফান্ডটির ইউনিট প্রতি আয় হয়েছে ৩২ পয়সা। আগের বছর হয়েছিলো ২৬ পয়সা। ডিভিডেন্ড প্রাপ্তির যোগ্যতা নির্ধারণে রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে ৬ সেপ্টেম্বর।

আইসিবি এএমসিএল অগ্রণী: ফান্ডটি ইউনিটহোল্ডারদের জন্য ৭ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। আগের বছর ফান্ডটি ৫ শতাংশ ডিভিডেন্ড দিয়েছিলো। আলোচ্য সময়ে ফান্ডটির ইউনিট প্রতি আয় হয়েছে ৬৮ পয়সা। আগের বছরে ছিলো ৩৪ পয়সা। ডিভিডেন্ড প্রাপ্তির যোগ্যতা নির্ধারণে ফান্ডটির রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে ৬ সেপ্টেম্বর।

এশিয়ান টাইগার গ্রোথ ফান্ড: ফান্ডের ট্রাস্টি কমিটি ৩০ জুন, ২০২১ সমাপ্ত অর্থবছরের জন্য ১৫ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। সমাপ্ত অর্থবছরের আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা শেষে ফান্ডটির ইউনিটপ্রতি মুনাফা (ইপিইউ) হয়েছে ১ টাকা ৯৩ পয়সা। আলোচ্য সময়ে ফান্ডটির ইউনিটপ্রতি সম্পদ (এনএভিপিইউ) মূল্য দাঁড়িয়েছে ১২ টাকা ৪১ পয়সা। ইউনিটহোল্ডারদের মাঝে ডিভিডেন্ড বিতরণে ফান্ডটির রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে ৭ সেপ্টেম্বর।

সিএপিএম বিডিবিএল মিউচুয়াল ফান্ড: ফান্ডটির ট্রাস্টি কমিটি ৩০ জুন, ২০২১ অর্থবছরের জন্য ১৩ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। সমাপ্ত অর্থবছরে ফান্ডটির ইউনিট প্রতি আয় (আইপিইউ) হয়েছে ২ টাকা ৪১ পয়সা। আগের অর্থবছরে ইউনিট প্রতি লোকসান ছিল ৭৫ পয়সা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here