মাসিক ভিত্তিতে পাঠাতে হবে পুঁজিবাজারে ব্যাংকের বিনিয়োগের তথ্য

0
234

পুঁজিবাজারে স্থি‌তিশীলতা এবং তারল্য সংকট কাটা‌তে ব্যাংকগুলোর গঠিত বিশেষ তহবিলের বিনিয়োগ তথ্য প্রতি মাসে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। বুধবার (৩১ আগস্ট) বাংলাদেশ ব্যাংকের ডিপার্টমেন্ট অব অফ-সাইট সুপারভিশন এ সংক্রান্ত একটি নির্দেশনা জারি করেছে।

দেশের সব তফসিলি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহীর কাছে পাঠানো প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, এখন থেকে তহবিল সংক্রান্ত সব তথ্য নির্ধারিত ছকে প্রতি মাসের ৫ তারিখের মধ্যে আগের মাসের প্রতিবেদন পাঠাতে হবে।

এতদিন ত্রৈমাসিক ভিত্তিতে এই রিপোর্ট দেওয়ার নিয়ম ছিল। প্রতি তিন মাস শেষে পরবর্তী মাসের ১৫ তারিখের মধ্যে এই রিপোর্ট জমা দিতে হতো।

এক্ষেত্রে ঋণদানকারী ব্যাংক ঋণ গ্রহীতা প্রতিষ্ঠানের নিকট হতে প্রয়োজনীয় তথ্যাদি সংগ্রহ করবে এবং তা সমন্বিত আকারে এসএফসিএম ছকে সংযোজন করে বিবরণীর সফট কপি দাখিল করতে হবে। এসএফসিএম ছকের সফট কপি অফ-সাইট সুপারভিশন বিভাগ থেকে সংগ্রহ করতে হবে। এছাড়া, এ সংক্রান্ত অন্যান্য শর্ত ও নির্দেশনাগুলো অপরিবর্তিত থাকবে বলে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

এর আগে পুঁজিবাজারে তারল্য সংকট কাটাতে বিশেষ তহবিল গঠনের জন্য গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে এক নির্দেশনা জারি করে বাংলাদেশ ব্যাংক। তাতে বলা হয়, এখন থেকে যে কোনো ব্যাংক তার নির্ধারিত সীমার বাইরেও পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের জন্য ২০০ কোটি টাকার ‘বিশেষ তহবিল’ গঠন করতে পারবে। অর্থাৎ একটি ব্যাংক তাদের মোট মূলধনের ২৫ শতাংশের বেশি শেয়ার ধারণ করতে পারবে না। আর এ ২০০ কোটি টাকা ওই ২৫ শতাংশের আওতামুক্ত থাকবে। ব্যাংকগুলো ইচ্ছে করলে তাদের নিজস্ব উৎস থেকে তহবিল গঠন করতে পারে। আবার তাদের হাতে থাকা ট্রেজারি বিল ও বন্ড বন্ধক রেখে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে কম সুদে ধারও নিতে পারবে।

এ বিশেষ তহবিলের জন্য ৫ আগস্ট পর্যন্ত ৩৫টি বাণিজ্যিক ব্যাংক মিলে তিন হাজার ৬৮৫ কোটি টাকার তহবিল গঠন করে, প্রতিটি ব্যাংক গড়ে ১০০ কোটি টাকার বেশি দিয়েছে। এ অর্থের পুরোটা এখনও বিনিয়োগ নাহলেও শেয়ার কেনা হয়েছে এক হাজার ৭৩৭ কোটি টাকার। আরও ১ হাজার ৯৮৪ কোটি টাকা বিনিয়োগের অপেক্ষায় আছে। সে হিসেবে ব্যাংকগুলোর তহবিলের ৪৭ শতাংশ বিনিয়োগে এসেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here