মিথুন নিটিংয়ের উৎপাদন বন্ধ

0
59

বেপজা ২০১৯ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি লীজ চুক্তি বাতিলের পর থেকে উৎপাদন বন্ধ রয়েছে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত মিথুন নিটিং অ্যান্ড ডাইংয়ের। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। তবে উৎপাদন বন্ধ থাকলেও শেয়ারের দর বাড়ছে হু হু করে। তবে এ দর বাড়ার পেছনে কোম্পানির পরিচালকদের কারসাজি রয়েছে বলে বাজার বিশ্লেষকরা মন্তব্য করেন।

ডিএসইর এক চিঠির জবাবে মিথুন নিটিং কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ২০১৯ ও ২০২০ সালের বার্ষিক আর্থিক হিসাব নিরীক্ষা কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। তারা অঅনুষ্ঠিত বার্ষিক সাধারন সভা (এজিএম) আয়োজনের জন্য উচ্চ-আদালতে আবেদন করবেন।

এদিকে আড়াই বছর ধরে উৎপাদনহীন মিথুন নিটিং অ্যান্ড ডাইং লিমিটেড। কিন্তু তারপরও অস্বাভাবিক হারে বাড়ছে শেয়ারটির দাম। তিন মাস ব্যবধানে ফেসভ্যালু অর্থাৎ অভিহিত মূল্যের নিচে থাকা শেয়ারটির দাম এখন বিক্রি ২২ টাকায়। অর্থাৎ দ্বিগুণের বেশি।

ডিএসইর তথ্য মতে, চলতি বছরের ২ জুন মিথুন নিটিংয়ের শেয়ারের দাম ছিল ৯ টাকা ৫০ পয়সা। গত ৩১ আগস্ট শেয়ারটি বিক্রি হয়েছে ২২ টাকায়। বুধবার (০১ সেপ্টেম্বর) বেলা ১১টায় ১০ শতাংশ বেড়ে ২৪ টাকা ২০ পয়সায় লেনদেন হয়েছে।

এবিষয়ে কোম্পানির ভারপ্রাপ্ত কোম্পানি সচিব মোহাম্মদ সোহেল রানা বলেন, শেয়ারের দাম বৃদ্ধির বিষয়ে কোনো সংবেদনশীল তথ্য আমাদের কাছে জানা নেই। তবে আমরা ২০১৯ এবং ২০২০ সালের এজিএম করার জন্য আদালতে আবেদন করবো। ২০১৬ সালে শেয়ারহোল্ডারদের সর্বশেষ ২০ শতাংশ লভ্যাংশ দেওয়া কোম্পানিটির বর্তমান শেয়ারহোল্ডাদের সংখ্যা হচ্ছে ৩ কোটি ২৪ লাখ ৯১ হাজার ১৬২টি। এর মধ্যে উদ্যোক্তা-পরিচালকদের হাতে রয়েছে ১৭ দশমিক ২০ শতাংশ শেয়ার সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে রয়েছে ৬৭ দশমিক ১৫ শতাংশ শেয়ার।

এছাড়াও প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের হাতে রয়েছে ১৫ দশমিক ৪৯ শতাংশ এবং বিদেশি বিনিয়োগকারীদের হাতে রয়েছে দশমিক ১৬ শতাংশ শেয়ার। ১৯৯৪ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হওয়া মিথুন নিটিংয়ের পরিশোধিত মূলধনের পরিমাণ ৩২ কোটি ৪৯ লাখ টাকা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here