শেয়ারবাজারে টানা দরপতন ইস্যুতে বিএসইসি-ডিএসই নিরব!

0
210

শেয়ারবাজারে টানা উত্থানের পর মূল্য সংশোধন দীর্ঘ হলে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়া ‘ভীতি’ থেকে শেয়ার বিক্রির হিড়িকে আরও বড় দরপতন হয়েছে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। ফলে বর্তমান বাজার নিয়ে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ছে বিনিয়োগকারীদের মাঝে। বাজার নিয়ে এক ধরনের জুজু ভয় চলছে। তবে শেয়ারবাজার টানা দরপতন ইস্যুতে বিএসইসি-ডিএসই নিরব ভুমিকা পালন করছেন বলে বিনিয়োগকারীরা অভিযোগ করেন।

এদিকে সপ্তাহের চতুর্থ কার্যদিবসে সূচকের বড় দরপতনে লেনদেন শেষ হয়েছে। একইসঙ্গে এদিন ডিএসই আগের কার্যদিবসের চেয়ে টাকার পরিমাণে লেনদেন কমলেও সিএসইতে বেড়েছে। পাশাপাশি শেয়ারবাজারে লেনদেন হওয়া অধিকাংশ কোম্পানির শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিটের দাম কমেছে। ডিএসই ও সিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এদিকে শেয়ারবাজারে বিভিন্ন ধরনের গুজব ও গুঞ্জণ যোগ হলে বিনিয়োগকারদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। এতে কার হাতে থাকা শেয়ার কে আগে বিক্রি করবেন এমন প্রতিযোগিতা থেকে বিক্রির হিড়িকে দরপতন দীর্ঘ হয়।

বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, মুনাফা তুলে নেওয়ার মধ্যে দিয়ে শুরু দর সংশোধনের প্রবণতা এক পর্যায়ে আরও কমবে শেয়ারদর এমন আশঙ্কায় টানা দরপতনে রূপ নেয়। ফলে বাজার বিক্রয়ের প্রবনতা বেড়ে যাচ্ছে। বাজার নিয়ে এক ধরনের কারসাজি হচ্ছে বলে তারা মনে করেন। তা হলে বর্তমান বাজার দরপতনের কোন কারন নেই।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্রোকারেজ হাউজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বলেন, সূচকের টানা উত্থানের পর শুরু হওয়া মূল্য সংশোধনে বিনিয়োগকারীরা ভয় পেয়ে গেছেন। সব মিলিয়ে পতনটি একটু বেশি হয়েছে। “সূচক যা কমার তা কমে গেছে, আর সামান্য কমতে পাওে বলে তিনি মনে করেন। গতকাল বুধবার ডিএসই’র প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৯৫.০৮ পয়েন্ট কমে ৬ হাজার ৯১৭.৯১ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

এর আগে ১০ অক্টোবর ডিএসইএক্স সূচক ৭ হাজার ৩৬৭.৯৯ পয়েন্টে পৌঁছে নতুন রেকর্ড গড়েছিলো। ডিএসই-৩০ সূচক ২৯.৪৮ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ২ হাজার ৬৩১.৩৭ পয়েন্টে। গত ৬ অক্টোবর ডিএস-৩০ সূচক ২ হাজার ৭৮৭.৮১ পয়েন্টে পৌঁছে নতুন রেকর্ড গড়েছিলো।

ডিএসইএস সূচক ১৬.৫৭ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১ হাজার ৪৫২.০০ পয়েন্টে। গত ৬ অক্টোবর ডিএসইএস সূচক ১ হাজার ৬০০.০৩ পয়েন্টে পৌঁছে নতুন রেকর্ড গড়েছিলো। বুধবার ডিএসইতে ৩৬৫ কোম্পানির শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৭৫টির, কমেছে ২৫৯টির এবং অপরিবর্তিত আছে ৩১টির। দিন শেষে ডিএসইতে এদিন ১ হাজার ১২৫ কোটি ৭৭ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে, যা আগের দিনের চেয়ে ১৮৮ কোটি টাকা কম।

অপর শেয়ারবাজার সিএসইর প্রধান সূচক সিএসইএক্স ১৫৪.৫৪ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১২ হাজার ১৮৩.৯৮ পয়েন্টে। গত ৩ অক্টোবর সিএসইএক্স সূচক ১২ হাজার ৯৪০.৫১ পয়েন্টে পৌঁছে নতুন রেকর্ড গড়েছিলো। তবে ২৫ অক্টোবর সিএসইএক্স সূচক ২৩৭ পয়েন্ট কমে। সার্বিক সিএএসপিআই সূচক ২৫৬.১৭ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ২০ হাজার ২৫৯.৭১ পয়েন্টে। এর আগে ৩ অক্টোবর সিএএসপিআই সূচক ২১ হাজার ৫৪৯.২৪ পয়েন্টে পৌঁছে নতুন রেকর্ড গড়েছিলো।

সিএসআই সূচক ১১.২৯ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১ হাজার ২৩৭.১৭ পয়েন্টে। গত ৩ অক্টোবর সিএসআই সূচক ১ হাজার ৩৮২.৬৭ পয়েন্টে পৌঁছে নতুন রেকর্ড গড়ে। বুধবার সিএসইতে ২৮৫টি কোম্পানির শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৮৪টির, কমেছে ১৭৩টির এবং অপরিবর্তিত আছে ২৮টির। দিন শেষে সিএসইতে ৫৮ কোটি ৪৯ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে, যা আগের দিনের চেয়ে ৬ কোটি টাকা বেশি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here