সাধারণ শেয়ারহোল্ডারদের জন্য ৪৫ কোম্পানির নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা

0
205

আগের অর্থবছরের ৩১টি থেকে বেড়ে ২০২০-২১ অর্থবছরের ব্যবসায় ৪৫ কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদ শুধুমাত্র সাধারন শেয়ারহোল্ডারদের জন্য নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। এছাড়া ২ কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদ সাধারন শেয়ারহোল্ডারদের থেকে কম হারে নগদ লভ্যাংশ নেবেন। অথচ কোম্পানিগুলোতে উদ্যোক্তা/পরিচালকদের বড় বিনিয়োগ রয়েছে। এমনকি অনেকগুলো কোম্পানির আর্থিক হিসাব অনুযায়ি পরিচালকদের নগদ লভ্যাংশ নেওয়ার সক্ষমতা রয়েছে।

উদ্যোক্তা/পরিচালকদের এই ছাড় দেওয়ার পেছনে অন্য কারণ দেখছেন সাধারন বিনিয়োগকারীরা। তাদের মতে, শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলো থেকে উদ্যোক্তা/পরিচালকেরা বিভিন্নভাবে সুবিধা নেন। তারা নিজেদের বাসার জন্য বাজার, কাজের বুয়ার বেতনসহ বিভিন্ন সুবিধা নিয়ে থাকেন। যে কারনে নগদ লভ্যাংশ ছাড় দিতে তাদের খুব একটা অসুবিধা হয় না। যারা একদিক দিয়ে ছাড় দিলেও অন্যদিক দিয়ে ঠিকই আদায় করে নেয়।

দেখা গেছে, গত ৩০ জুন থেকে ২৪ নভেম্বর পর্যন্ত সময়ে লভ্যাংশ সংক্রান্ত সভা করা কোম্পানিগুলোর মধ্যে ৪৫টির পর্ষদ শুধুমাত্র সাধারন শেয়ারহোল্ডারদের জন্য নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করা হয়েছে। যে কোম্পানিগুলো থেকে ১৬৫ কোটি ৫৪ লাখ টাকার নগদ লভ্যাংশ বিতরন করা হবে। অথচ কোম্পানিগুলোর নিট মুনাফা হয়েছে ৩৯২ কোটি ৩৯ লাখ টাকা।

বর্তমানে নগদ লভ্যাংশ প্রদানের কড়াকড়ি থাকায় অনেক কোম্পানির জন্য সমস্যা হয়ে দাড়িঁয়েছে। কৃত্রিম মুনাফা দেখিয়ে বোনাস দেওয়া সম্ভব হলেও নগদের ক্ষেত্রে তা হয় না। যা অনেকের জন্য সমস্যার কারন হয়ে দাড়িঁয়েছে। এছাড়া করোনার কারনে সব কোম্পানির নগদ লভ্যাংশ দেওয়ার সক্ষমতা নেই। যে কারনে শুধুমাত্র সাধারন শেয়ারহোল্ডারদের নগদ লভ্যাংশ দেওয়া হচ্ছে বলে বাজার সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সাবেক পরিচালক মিনহাজ মান্নান ইমন বিজনেস আওয়ারকে বলেন, সক্ষমতা না থাকায় গত বছরের ন্যায় এবারও অনেক কোম্পানির পর্ষদ শুধুমাত্র সাধারন শেয়ারহোল্ডারদের জন্য নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। এটাও করত না, যদি নগদ লভ্যাংশ প্রদানে বাধ্যবাধকতা না থাকত। শুধুমাত্র বোনাস শেয়ার দিয়েই ক্যাটাগরি ধরে রাখার চেষ্টা করত।

দেখা গেছে, ২০২০-২১ অর্থবছরের ব্যবসায় ৪৫ কোম্পানির পর্ষদ শুধুমাত্র সাধারন শেয়ারহোল্ডারদের জন্য নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। এরমধ্যে ১১ কোম্পানির পর্ষদ বোনাস শেয়ারও ঘোষণা করেছে। উদ্যোক্তা/পরিচালকেরা ওই ৪৫ কোম্পানির নগদ লভ্যাংশ না নিলেও সবাই বোনাস শেয়ার নেবেন।

এ বিষয়ে প্যাসিফিক ডেনিমসের সচিব মো. সোরহাব আলী বিজনেস আওয়ারকে বলেন, করোনার কারনে অনেক কোম্পানির ব্যবসায় মন্দা ও নগদ অর্থের সংকটে রয়েছে। প্যাসিফিক ডেনিমসও এ তালিকায় রয়েছে। যে কারনে শুধুমাত্র সাধারন শেয়ারহোল্ডারদের জন্য নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করতে হয়েছে। এর বাহিরে কিছু না। এখন কেউ যদি বলে সাধারন বিনিয়োগকারীদের স্বার্থে এমনটি করা হয়েছে, সেটা ভুল হবে। 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কোম্পানির সচিব বিজনেস আওয়ারকে বলেন, অনেকে কোম্পানি কর্তৃপক্ষ শেয়ার ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। যে কারনে তারা অনেক সময় বাস্তব অবস্থার চেয়ে বেশি করে মুনাফা দেখায়। এর ফলে আর্থিক হিসাব অনুযায়ি সক্ষমতা থাকলেও বাস্তবে না থাকায় সবাইকে নগদ লভ্যাংশ দিতে পারে না। তখন শুধুমাত্র সাধারন শেয়ারহোল্ডারদের দেয়।

নিম্নে শুধুমাত্র সাধারন শেয়ারহোল্ডারদের জন্য নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করা কোম্পানিগুলোর তথ্য তুলে ধরা হল-

কোম্পানির নামলভ্যাংশের হারনগদ লভ্যাংশের পরিমাণ (কোটি টাকায়)বোনাস শেয়ারের সংখ্যানিট মুনাফা/লোকসান
*ইনডেক্স অ্যাগ্রো২৫% নগদ২.০৬ ২৩.২৬
*আমান ফিড১৫% নগদ৭.২২ ৩৩.১৪
*খুলনা পাওয়ার১২.৫০% নগদ১৪.৯১ ৩৪.৫৭
*আমান কটন১১% নগদ৩.০৮ ১২.৬০
*ভিএফএস থ্রেড১১% নগদ৮.০৪ ১৫.৮৩
*সিলকো ফার্মা১০% নগদ৬.৩৫ ৮.৫১
*ইজেনারেশন১০% নগদ৪.৬৬ ১০.৫৩
*ইউনিক হোটেল১০% নগদ১৫.৯৬ (৯.৭২)
*মুন্নু এগ্রো১০% নগদ০.১৬ ০.৪২
*মুন্নু সিরামিক১০% নগদ১.৬০ ৩.৪০
*সামিট অ্যালায়েন্স পোর্ট১০% নগদ৮.৮৪ ১৮.৭১
*আলিফ ইন্ডাস্ট্রিজ১৫% নগদ (২ বছরের)৬.৬৪ ১০.৯৩ (২ বছরের)
*কাট্টলি টেক্সটাইল১০% নগদ৮.১০ ৬.০৫
*সাফকো স্পিনিং৫% নগদ১.০৫ ০.৬৯
*জিকিউ বলপেন৫% নগদ০.২৬ (৬.৭৫)
*হামিদ ফেব্রিক্স৫% নগদ২.২১ (১৬.০২)
*সিলভা ফার্মা৫% নগদ৪.৭৫ ১২.০১
*দেশবন্ধু পলিমার৫% নগদ২.০৪ ১.২৩
*জেমিনি সী ফুড৫% নগদ০.১৬ ০.৩৪
*গ্লোবাল হেভী কেমিক্যাল৫% নগদ১.১১ ২.৪৫
*এসকে ট্রিমস৫% নগদ২.৯১ ৯.৬৬
*বিডি অটোকারস৪% নগদ০.১২ ০.১৬
*মোজাফ্ফর হোসাইন৩% নগদ১.৮৩ ৫.২৫
*গোল্ডেন সন২.৭৫% নগদ২.৮৮ ৫.১৫
*বেঙ্গল উইন্ডসোর২.৫% নগদ (অন্তর্বর্তী ছাড়া)১.০৭ ৪.৫৭
*আনলিমা ইয়ার্ন২% নগদ০.১৯ ০.০৯
*বিডি থাই২% নগদ১.৭৮ ১৫.৯৭
*আলিফ ম্যানুফ্যাকচারিং৩.৫% নগদ (২ বছরের)৬.৩৩ ২৩.৯১ (২ বছরের)
*অলিম্পিক এক্সেসরিজ১% নগদ১.২৬ (৫.৫৯)
*লিগ্যাছি ফুটওয়্যার১% নগদ০.০৯ ০.৫১
*রহিমা ফুড১% নগদ০.১১ ০.১৪
*হাক্কানি পাল্প১% নগদ০.১০ (২.৪৩)
*এএফসি অ্যাগ্রো০.৫০% নগদ০.৪০ ১.৭৩
*একটিভ ফাইন০.৫০% নগদ১.০৬ ৩.৮৪
*সমতা লেদার০.৫০% নগদ০.০৩ ০.১০
*ইন্দোবাংলা ফার্মা৪% নগদ ও ৩% বোনাস২.৫৬৩৪১২১১৪১৩.৪২
*প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল২০% নগদ ও ৫% বোনাস১২.১১৭৭৫৩৯৭৮৬৬.২২
*ডরিন পাওয়ার১৩% নগদ ও ১২% বোনাস৬.২৭১৭৩২৬৪২৬১১৬.৮১
*কুইন সাউথ­­ টেক্সটাইল১০% নগদ ও ১০% বোনাস৬.১২১৩০৮৭৬০২১৬.৩৬
*এসোসিয়েট অক্সিজেন৫% নগদ ও ৭% বোনাস৩.৫৬৭১৮২০০০২১.৫১
*আফতাব অটোমোবাইলস৫% নগদ ও ৫% বোনাস৩.৩৫৪৭৮৬৬২১৮.১৪
*নাভানা সিএনজি৫% নগদ ও ৫% বোনাস১.৯৭৩৪২৬৪৩০৫.৪০
*ডমিনেজ স্টিল৫% নগদ ও ৫% বোনাস৩.৫৮৫১৩০০০০১০.৬৯
*ইন্ট্রাকো রিফুয়েলিং২% নগদ ও ৮% বোনাস১.২৬৭২৭৬৫০০৭.৩৭
*এসএস স্টিল২% নগদ ও ৮% বোনাস৪.১৫২৪৩৪৩২০০৭০.২৯
*প্যাসিফিক ডেনিমস১% নগদ ও ১% বোনাস১.২৫১৮১৭৩২৮৪.০০
মোট ১৬৫.৫৪ কোটি টাকা৯৫৫৪২১৯৯টি৩৯২.৩৯ কোটি টাকা

এদিকে ২ কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদ ২০২০-২১ অর্থবছরের ব্যবসায় সাধারন শেয়ারহোল্ডারদের থেকে কম হারে নগদ লভ্যাংশ নেবে। এরমধ্যে ওয়ালটন হাইটেক এর পরিচালনা পর্ষদ সাধারন শেয়ারহোল্ডারদের জন্য ২৫০% নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করলেও নিজেরা নেবে ১৭০% হারে। আর দেশ গার্মেন্টসের সাধারন শেয়ারহোল্ডারদের ৫% দেওয়া হলেও উদ্যোক্তা/পরিাচলকেরা ৩% হারে নেবেন।

কোম্পানির নামলভ্যাংশের হারনগদ লভ্যাংশের পরিমাণ (কোটি টাকায়)বোনাস শেয়ারের পরিমাণনিট মুনাফা (কোটি টাকা)
*ওয়ালটন হাই-টেক২৫০% নগদ (উ/প ১৭০%)৫১৭.৩২০০১৬৩৯.২০
*দেশ গার্মেন্টস৫% নগদ ও (৩% উ/প:)০.২৯০০০.৩০

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here