‘মানুষ ব্যাংকে টাকা না রেখে মিউচ্যুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগ করবে’

0
60
HTML tutorial

শেয়ারবাজারে মিউচ্যুয়াল ফান্ডগুলোর স্বচ্ছতা বাড়াতে ও সাধারণ মানুষের কাছে সহজ ও জনপ্রিয় করে তুলতে বিশেষ পরিকল্পনা নিয়েছে শেয়ারবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা-বিএসইসি। ফান্ডগুলো কোন কোন শেয়ারে বিনিয়োগ করেছে, সেই বিষয়টি সবার সামনে নিয়ে আসতে চায় তারা।

এ জন্য তহবিলগুলোর বিভিন্ন তথ্য নিয়ে নতুন একটি ওয়েবসাইট গড়ে তোলার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিএসইসি কমিশনার মিজানুর রহমান।

তিনি বলেন, মিউচ্যুয়াল ফান্ডগুলোতে স্বচ্ছতা আনতে পারি, জবাবদিহিতা বাড়াতে পারি ও বিনিয়োগকারীদের তারল্য দিতে পারি, সুরক্ষা দিতে পারে, তাহলে মানুষ ব্যাংকে টাকা না রেখে দেশের মিউচ্যুয়াল ফান্ডগুলোতে বিনিয়োগ করবে।

বৃহস্পতিবার (৬ অক্টোবর) বিশ্ব বিনিয়োগকারী সপ্তাহ-২০২২ উপলক্ষে অ্যাসোসিয়েশন অব অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানিজ অ্যান্ড মিউচুয়াল ফান্ডস (এএএমসিএমএফ) আয়োজিত ‘রুল অব টেকনোলজি অ্যান্ড ইএসজি অ্যানালাইটিকস ইন সাসটেইনেবল ফাইন্যান্সিং’ শীর্ষক সেমিনারে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা বাড়ানোর অংশ হিসেবে সব তথ্য সবার কাছে উন্মুক্ত করার পরিকল্পনার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, মিউচ্যুয়াল ফান্ডগুলোর স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা বাড়াতে, আর মানুষের কাছে ফান্ডগুলোকে সহজ ও জনপ্রিয় করে তুলতে, আমরা একটি খুব আধুনিক ওয়েবসাইট তৈরি করার পরিকল্পনা করেছি। যেখানে বাংলাদেশের সব সম্পদ ব্যবস্থাপক তাদের ব্যবস্থাপনায় থাকা মিউচ্যুয়াল ফান্ডগুলোর বিভিন্ন তথ্য দেবে।

‘বিশেষ করে মিউচ্যুয়াল ফান্ডগুলো কোন শেয়ারে বিনিয়োগ করছে, এসব গুরুত্বপূর্ণ তথ্য এখানে থাকবে। বাংলাদেশের ও বাংলাদেশের বাইরের সব বিনিয়োগকারী এখানে ঢুকে মিউচ্যুয়াল ফান্ডের সমস্ত তথ্য দেখতে পারবে। এটা অ্যাপ আকারেও করা হবে।’

বাংলাদেশের মিউুচয়াল ফান্ডের যে সংষ্কার করা হয়েছে সেগুলো তুলে ধরে তিনি বলেন, আমরা যখন কাজ শুরু করি বাংলাদেশের মিউচ্যুয়াল ফান্ড খাতের ১০ হাজার কোটি টাকার মধ্যে তিন হাজার কোটি টাকা লোকসানে ছিল। আমরা আসার পরে এই খাতে স্বচ্ছতা ফিরিয়ে নিয়ে আসতে কাজ করেছি। এখন এই খাতের অবস্থা এখন আগের চেয়ে অনেক ভালো।

‘আমরা এখন এই খাতকে বড় করার জন্য নতুন নতুন পণ্য নিয়ে আসতে কাজ করছি। আমরা ইটিএফ নিয়ে আসছি। আমাদের কাছে ৫টি ইটিএফ আবেদন করেছে। এই বছরের শেষে বাজারে ৫টি ইটিএফ আসবে। ’

এএএমসিএমএফের প্রেসিডেন্ট হাসান ইমাম বলেছেন, মিউচুয়াল ফান্ড এখন মার্কেটে ভালো ইনভেস্টমেন্ট না, এটা প্রায়ই শোনা যায়। কিন্তু আমি বলব এখন শেয়ার মার্কেটের সবচেয়ে বড় সুযোগ হলো মিউচুয়াল ফান্ড। কারণ আমি এখন ৫ টাকা দিয়ে এমন একটা ইউনিট কিনতে পারি, যেটার সম্পদ আছে ১০ টাকা। এছাড়া ওই ৫ টাকা দিয়ে আমি সাড়ে ৭ শতাংশ ডিভিডেন্ড পাই। যার ডিভিডেন্ড ইল্ড বা প্রকৃত লভ্যাংশ ১৫ শতাংশ।

তিনি বলেন, আমাদের একচুয়াল ক্লোজড মিউচুয়াল ফান্ডকে যদি দেখি সিচুয়েশন কিন্তু এরকমই। যেটার ১০ টাকা এনএভি, সেটা ৫ টাকায় ট্রেড হচ্ছে। এটা ইনভেস্টরদের জন্য বড় অপরচুনিটি। আপনারা যদি লংটার্ম ইনভেস্টর সত্যি হন, তাহলে এসব মিউচুয়াল ফান্ড কেনা উচিত। কারণ এরা বছর বছর ভালো ডিভিডেন্ড দিচ্ছে। অর্থাৎ ডিভিডেন্ড ইল্ড ৫ টাকায় কিনলে কত পাব। ৫ টাকায় কিনলে কত ডিভিডেন্ড পাব সেটা যদি হিসাব করেন, তাহলে অনেক ফান্ড ১৫ থেকে ২০ শতাংশ ডিভিডেন্ড দেয়।

এএএমসিএমএফ’র সভাপতি ড. হাসান ইমামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। বক্তব্য রাখেন বিএসইসির কমিশনার শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ ও রুমানা ইসলাম।

ট্রেডার বাংলাদেশ, ০৮ অক্টোবর, ২০২২

HTML tutorial

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here