”আন্তর্জাতিক নিরীক্ষক দিয়ে অবণ্টিত লভ্যাংশ খুঁজে বের করা হবে”

0
57

প্রাথমিক গণপ্রস্তাবে (আইপিও) আসার পর থেকে জমা হওয়া অবণ্টিত লভ্যাংশ কোথায় রাখা হয়েছে তা খুঁজে বের করা হবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম।

তিনি বলেন, এই অর্থ খুঁজে বের করতে আন্তর্জাতিক মানের নিরীক্ষক দিয়ে নিরীক্ষা করা হবে। যে টাকা নিজের না, তা আপনারা (কোম্পানির ম্যানেজমেন্ট) নিলেন কেন? অন্যের টাকা নিয়ে নিজের বাড়ি-গাড়ি করার অধিকার কেউ দেয়নি।

মঙ্গলবার (১৫ মার্চ) বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মবার্ষিকী উদযাপন ও শেয়ারহোল্ডারদের দাবি মীমাংসার বিষয়ে ক্যাপিটাল মার্কেট স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ড (সিএমএসএফ) আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে বিএসইসির কমিশনার ড. শেখ সামসুদ্দিন আহমেদ ও বিএপিএলসির সদ্য বিদায়ী সভাপতি আজম জে চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া সিএমএসএফের সিওও মনোয়ার হোসেন উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সিএমএসএফ এর চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান।

বিএসইসি চেয়ারম্যান বলেন, বিনিয়োগকারীদের দাবি মেটানো খুবই গুরুত্বপূর্ণ। বিনিয়োগকারীরা হয়তো অনেক বছর জানতই না তাদের পাওনা টাকার বিষয়ে। আজ পাওয়ার মাধ্যমে তাদের মধ্যে পুঁজিবাজার নিয়ে ইতিবাচক মনোভাব আসবে। এই বাজারে বিনিয়োগ করলে যে রিটার্ন পাওয়া যায়, সেই বার্তা সকলের কাছে পৌঁছে যাবে। এছাড়া তাদের পাওনা আদায় করে দেওয়ার জন্য যে রেগুলেটর আছে, সেটা তাদের মধ্যে আস্থা তৈরি করবে।

তিনি বলেন, কোম্পানিগুলোতে বিনিয়োগকারীদের হাজার হাজার কোটি টাকার লভ্যাংশ জমে থাকার বিষয়টি যখন আমরা তুলে নিয়ে আসলাম, তখন কোম্পানি কর্তৃপক্ষ ওই লভ্যাংশের পাওনাদার বিনিয়োগকারীদের খুঁজে পাচ্ছে। ঠিক আছে, পাক। আমাদের উদ্যোগের ফলে যদি বিনিয়োগকারীরা তাদের পাওনা ফেরত পায়, সেটাও ভালো।

তিনি আরও বলেন, তবে এখনো কিছু কোম্পানি থেকে অবণ্টিত লভ্যাংশের হিসাব নেই। অনেকেই মাসের পর মাস সময় চেয়েই যাচ্ছেন। তবে ৩১ মার্চের পরে কমিশন কঠোর হবে। এখনো জরিমানা করা শুরু করিনি, তবে শিগগিরই কমিশন পদক্ষেপ নেবে। আমরা অনেক সময় দিয়েছি এবং অপেক্ষা করেছি। চলতি মাসের পরে আর সময় দেওয়া হবে না।

অবণ্টিত লভ্যাংশের অপব্যবহারকারীদের হুঁশিয়ারি দিয়ে তিনি বলেন, চলতি মাসের মধ্যে যদি ওই লভ্যাংশের হিসাব দিতে না পারে, ফান্ড কোথায় রয়েছে তা যদি বলতে না পারে এবং স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ডে লভ্যাংশ স্থানান্তর না করলে কমিশন কঠোর ব্যবস্থা নেবে। অবণ্টিত লভ্যাংশের থেকে কয়েকগুণ বেশি জরিমানা করা হবে।

গত সপ্তাহে বাজারে নেতিবাচকতার কারণ হিসেবে শিবলী রুবাইয়াত বলেন, চলমান পরিস্থিতিতে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে আতঙ্ক তৈরি হয়েছিল। বিশ্বের অন্যান্য দেশেও হয়েছে। তবে আমরা স্ট্র্যাটেজিক ও ফাইন্যান্স ম্যানেজমেন্টের মাধ্যমে সংকট কাটিয়ে উঠেছি। এক্ষেত্রে স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ড গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে। আমরা যে উদ্দেশ্যে ফান্ড গঠন করেছিলাম সেটা সত্যিই কাজে লেগেছে।

বিনিয়োগকারীদের পাশে সরকার আছে এবং ভয়ের কিছু নেই উল্লেখ করে শিবলী বলেন, কোম্পানির কার্যক্রম বন্ধ থাকায় বিনিয়োগকারীদের অর্থ ২০-৩০ বছর ধরে আটকে আছে, এমন প্রায় ২০টি কোম্পানি এখন বাজার থেকে বেরিয়ে যেতে চায়। ওইসব কোম্পানি বিনিয়োগকারীদের অর্থ বুঝিয়ে দেবে। পুঁজিবাজার থেকে কোম্পানির বেরিয়ে যাওয়ার জন্য পলিসি করা হয়েছে।

তবে বর্তমানে বের হয়ে যাওয়া ও বিনিয়োগকারীদের অর্থ ফেরত দীর্ঘমেয়াদি বলে জানান তিনি। শিবলী বলেন, এটি সহজ করার জন্য সিএমএসএফের হাতে দেওয়া হবে। এখান থেকে বিনিয়োগকারীরা তাদের অর্থ ফেরত পাবে। আমরা শেয়ারবাজার থেকে বেরিয়ে যেতে চাওয়া কোম্পানিগুলোর ফান্ড সিএমএসএফে নিয়ে আসার চিন্তাভাবনা করছি।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংককে বন্ড মার্কেট ছাড়া কোনো দেশ উন্নত হয় না বলে জানিয়েছি। আমরা এই মার্কেটটাকে এগিয়ে নিতে কাজ করছি। তবে বিনিয়োগ সীমার মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করার কারণে অগ্রগতি বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। এ বিষয়টি সমাধানে বাংলাদেশ ব্যাংককে সহযোগিতার জন্য বলেছি।

ট্রেডার বাংলাদেশ, ১৫ মার্চ, ২০২২

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here