শেয়ারবাজার এভাবে চলতে পারে না

0
126
HTML tutorial

শেয়ারবাজারে ভাইব্রেন্সি খুব প্রয়োজন। তা ছাড়া এভাবে চলতে পারে না। বছরের ১২ মাসের মধ্যে ১০ মাস ডিপ্রেসড থাকবে, আর দুই মাস ভালো থাকবে, আমরা উচ্ছ্বসিত থাকব, এভাবে চলে না।’

বৈশ্বিক অর্থনৈতিক সংকটের মধ্যে দেশে শেয়ারবাজারের যে আচরণ, তাতে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের পাশাপাশি হতাশ হয়ে পড়েছেন খোদ স্টক এক্সচেঞ্জের সঙ্গে জড়িত বড় বিনিয়োগকারীরাও।

ফ্লোর প্রাইসের প্রভাবে শেয়ারের দরপতন ঠেকানো গেছে বটে, কিন্তু ৩৯০টি কোম্পানির মধ্যে কার্যত ৭০ থেকে ৮০টি কোম্পানির শেয়ারে হাতবদল হচ্ছে, তাও সংখ্যায় কম। বাকি কোম্পানিগুলোর মধ্যে কোনো দিন ৭০টি, কোনো দিন ৮০টির ক্রেতা থাকে না। আর দুই শতাধিক কোম্পানির কিছু শেয়ার হাতবদল হয় বটে, কিন্তু তা এতটাই নগণ্য যে গুরুত্ব পাওয়ার মতো না।

মাস দুয়েক আগেও সেখানে দুই হাজার কোটি বা তার চেয়ে বেশি লেনদেন হচ্ছিল, সেটি এখন নেমে এসেছে তিন শ কোটির ঘরে।

ডিএসই ব্রোকার্স অ্যাসোসিয়েশনের (ডিবিএ) সাবেক সভাপতি আহমেদ রশীদ লালী পুঁজিবাজারের এই পরিস্থিতিতে পুরোপুরি হতাশ। নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘পুঁজিবাজারে ভাইব্রেন্সি খুব প্রয়োজন। তা ছাড়া এভাবে চলতে পারে না। বছরের ১২ মাসের মধ্যে ১০ মাস ডিপ্রেসড থাকবে, আর দুই মাস ভালো থাকবে, আমরা উচ্ছ্বসিত থাকব, এভাবে চলে না।’

‘বাজারের মধ্যে এখন বড় বিনিয়োগকারীরা ওয়েট অ্যান্ড সি বা সাইডলাইনে বসে গেছেন। একটা বৈশ্বিক কারণ আর দ্বিতীয় হলো যে, এই যে কোটি কোটি টাকা ফাইন হয়, সেটা দেখে আতঙ্কিত হয়ে পড়েন।’

তিনি বলেন, কেউ দোষ যদি করে তাহলে শাস্তি হবে, কিন্তু যেভাবে মিডিয়ায়, পত্রিকায় আসে, সেভাবে আসলে বড় বিনিয়োগকারীরা শাই হয়ে যায়। তারা যদি বিনিয়োগ করতে ভয় পায়, তাদের জন্য প্যানিক সিচুয়েশন হয়, তাহলে বাজারের ভাইব্রেন্সি থাকবে না। তখন আমাদের মতো বিনিয়োগকারীরা বাজারকে ওইভাবে সাপোর্ট দিতে পারি না। সাপোর্ট দিতে হলে বড় বিনিয়োগকারীদের আনতে হবে।’

বাজারে যে জিনিসগুলো প্রয়োজন তা হলো ডিএসইর আমূল পরিবর্তন করতে হবে। বৃহত্তর রিফর্মেশন আনতে হবে। ডিএসই কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য না, কোনো কাজই করছে না, অগ্রহণযোগ্য। একটা ইনএফিশিয়েন্ট এক্সচেঞ্জ যেটাকে বলা হয়, সেটা হলো ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ।’

কোনো নীতি বা বড় সিদ্ধান্ত গ্রহণের আগে সবার অংশ্রহণের ওপর জোর দেন তিনি। বলেন, ‘পলিসির কনসিসটেন্সি থাকতে হবে। ডিএসই থেকে বা বিএসইসি থেকেই হোক ধারাবাহিকতা থাকতে হবে। কোনো নীতি করার আগে সব স্টেকহোল্ডারের সঙ্গে বসে একটা ভালো জিনিস বের করে আনতে হবে।’

ডিবিএর বর্তমান সভাপতি রিচার্ড ডি রোজারিও বলেন, ‘রিফর্মেশন দরকার আছে, তবে ভালো লোককে বাদ দিয়ে অযোগ্য লোককে নিয়ে এলে হবে না। আইটি সেক্টরে দুর্বলতা রয়েছে, সেটা বারবারেই দেখা যাচ্ছে। এ ছাড়া দুইটা স্টক এক্সচেঞ্জই চলছে ভারপ্রাপ্ত এমডি দিয়ে, এটা কোনোভাবেই কাম্য নয়।’

ট্রেজার সিকিউরিটিজের শীর্ষ কর্মকর্তা মোস্তফা মাহবুব উল্লাহ বলেন, ‘ডিএসইর রিফর্মেশন অবশ্যই দরকার আছে। এমডি পদেই একজন লোক ঠিক করা যাচ্ছে না, আসছেন আর যাচ্ছেন। এটা কেমন কথা? এটা তো প্রতিষ্ঠানের পথচলা বাধাগ্রস্ত করছে।’

কারসাজির সাজা এত দেরিতে কেন?

শেয়ারবাজারে কোনো শেয়ার নিয়ে কারসাজি হলে মাসের পর মাস তা দেখে আরও কয়েক মাস পর ব্যবস্থা নিয়ে তা ঠেকানো যাবে না বলেও মনে করেন লালী।

বলেন, নিউ ইয়র্কে ডেইলি বিচার হয়। জুমের মাধ্যমে তারা অভিযুক্তকে জিজ্ঞেস করেন আপনি এটা এটা করেছেন। আপনি কি দোষী? উত্তর ‘হ্যাঁ’ হলে বলা হয়, ১০ হাজার ডলার পাঠিয়ে দিন। এভাবে কেসটা চলে।

‘এখন তো অনলাইন সার্ভেলেন্স। আপনি কেন সঙ্গে সঙ্গে বলছেন না, আপনি ভুল করছেন। এটা ঠিক করেন। তাহলেই তো আমি সাবধান হয়ে যাই। আমাকে ভুল করিয়ে কমিটি করবেন, ইনকোয়ারি করবেন, তারপর কোটি কোটি টাকা ফাইন করবেন।’

যেটা সঙ্গে সঙ্গে সারাতে পারেন সেটা তিন মাস ধরে করে করছেন, এটা কি টাকা কামাই করার মেশিন নাকি? তিন মাস ধরে বিচার করবেন, আর তিন মাস ধরে বাজার ক্ষতিগ্রস্ত হবে সেটা তো হতে পারে না।’

ডিবিএ সভাপতি রিচার্ড বলেন, ‘সার্ভেলেন্সের মাধ্যমে ম্যানুপুলেশন রোধে তড়িৎ ব্যবস্থা নিলে ব্রোকারেজ হাউজটাও রক্ষা পায়, ওই লোকটাও বাঁচে আবার পুঁজিবাজারও ক্ষতির সম্মুখীন হয় না।’

সার্ভেলেন্সের মাধ্যমে ম্যানুপুলেশন ব্যবস্থা নেয়ার পক্ষে মোস্তফা মাহবুব। ‍তিনি বলেন, ‘সার্ভেলেন্সে রিয়েল টাইম ট্রেড দেখা যায়। সুতরাং সময়েই ফোন করেই এটা বন্ধ করা যায় বা ব্যবস্থা নেয়া যায়।’

জরিমানার অঙ্ক নিয়ে অসন্তুষ্ট ট্রেজার সিকিউরিটিজের শীর্ষ কর্মকর্তা মোস্তফা মাহবুব উল্লাহ। তিনি বলেন, ‘যত আয় করছে, তার ২ থেকে ৩ শতাংশ জরিমানা করা হচ্ছে। এটা কি জরিমানা নাকি জাকাত? জরিমানা হতে হবে, যতখানি ম্যানুপুলেশন তার কয়েকগুণ বেশি।’

লালী বলেন, ‘ইনডেক্স, ভলিউম কন্ট্রোল করা থেকে বিরত থাকতে হবে। বাজারের মধ্যে ব্যাড প্লে করছে কি-না, বাজার সুস্থ রাখার জন্য সেটা দেখা দরকার। বাজারকে অযাচিতভাবে খারাপ রাখার চেষ্টা করছে কিনা তা দেখবে নিয়ন্ত্রক সংস্থা। তবে কোনো অবস্থাতেই ভলিউম বা ইনডেক্স কন্ট্রোল করলে পরে বাজার ক্ষতিগ্রস্ত হবে।’

বড় বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে বসে তাদের কী সমস্যা, সেগুলো একটু দেখে সমস্যার সমাধানের পরামর্শও দেন তিনি। বলেন, ‘বাজারে সবসময় মার্কেট মেকার থাকতে হয়। না থাকলে সারাজীবন নড়বড়ে থাকবে।’

ট্রেজার সিকিউরিটিজের শীর্ষ কর্মকর্তা মোস্তফা মাহবুব উল্লাহও মনে করেন মার্কেট মেকার থাকা জরুরি। তিনি বলেন, ‘মার্কেট মেকার লাইসেন্স দিয়ে মার্কেট ভালো করা যায়। সব ডুজ অ্যান্ড ডোন্ট মেনে চলতে হবে।’

বিনিয়োগকারীদের স্বার্থে নগদ পেমেন্ট পদ্ধতির চালু থাকা দরকার বলে জানান ডিএসইর পরিচালক শাকিল রিজভী। বলেন, ‘পুঁজিবাজারে অ্যাসেট দ্রুত লিকুইডেট করা যায় বলেই তারা সাধারণ বিনিয়োগকারীরা এখানে আসেন। যখন কোনো ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারী চেক ছাড়া নগদ টাকা নিতে পারেন না, সেটা তাকে মার্কেট বিমুখ করে। কারণ অল্প কিছু টাকার জন্য এত ঝক্কিঝামেলা পোহাতে চান না কেউই। সুতরাং এই বিষয়টা একটু দেখা দরকার।’

কী বলছেন বিএসইসি চেয়ারম্যান

শেয়ারবাজার সংশ্লিষ্টদের এসব বক্তব্যের বিষয়ে জানতে চাইলে বিএসইসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘প্রায় সবই ঠিক বলেছেন। তবে সার্ভেলেন্সটা ডিএসই করে থাকে। তারা এনফোর্সমেন্টের জন্য পাঠানোর পরে আমাদের কাজ শুরু করতে হয়। যার জন্য দেরি হয়ে যায়।’

তিনি বলেন, ‘আর আমরা তো মিডিয়াতে প্রেস রিলিজ হিসেবে জরিমানার খবর প্রচার করি না। আমাদের ওয়েবসাইটে আপলোড করা থাকে, সেখান থেকে হয়তো দেখে করে।

‘ডিএসইর বোর্ড রিফর্মেশনের দরকার আছে। সেটাও বিবেচনায় নেয়া হবে।’

ট্রেডার বাংলাদেশ, ২৬ নভেম্বর, ২০২২

HTML tutorial

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here